বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার স্থায়ী জামিন চেয়ে আবেদন করেছে তার পরিবার। এই আবেদন সরকার মঞ্জুর করবে বলে আশাবাদী বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া।

শনিবার রাতে গুলশানে বিএনপি চেয়ারপারসনের বাসভবনে তার সঙ্গে স্বাক্ষাৎ শেষে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে খালেদা জিয়ার আইজীবী দলের সদস্য ও দলের যুগ্ম মহাসচিব ব্যারিস্টার মাহবুবউদ্দিন খোকন এ কথা জানান।

মাহবুবউদ্দিন খোকন বলেন, দেশে এবং বিদেশী চিকিৎসার জন্য বিএনপি চেয়ারপারসনের পরিবারের পক্ষ থেকে সরকারের কাছে আবেদন করা হয়েছে। আর উনি (খালেদা জিয়া) এবং আমরা আশাবাদী সরকার অনুমোদন দেবে। বিএনপি চেয়ারপারসন কোথায় চিকিৎসা করাবেন- এই প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, এবিষয়ে কিছু আলোচনা হয়নি। তবে উনি অল্প সময়ের জন্য (বিদেশে) চিকিৎসা করাতে যাবেন। সরকার আবেদন গ্রহণ না করলে আপনারা কী করবেন- এই প্রশ্নের প্রতিক্রিয়ায় খোকন বলেন, সরকার আবেদন বিবেচনায় নেবে বলে আমরা আশাবাদী।

বিএনপি চেয়ারপারসনের পরিবারের পক্ষ থেকে তার ভাই শামীম এস্কেন্দার গত মঙ্গলবার এই আবেদন করেন।

প্রসঙ্গত, পরিবারের আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে গত মার্চে খালেদা জিয়ার দন্ডাদেশ ছয় মাসের জন্য স্থগিত করে শর্ত সাপেক্ষে তাকে মুক্তি দেয় সরকার। যার মেয়াদ শেষ হবে আগামী সেপ্টেম্বরে।

গত ২৫ দীর্ঘ ২৫ মাস সাজা ভোগের পর মুক্তি পেয়ে গুলশানের ভাড়া বাড়ি ফিরোজায় গিয়ে উঠেন বিএনপি চেয়ারপারসন। এরপর থেকে সেখানেই আছেন তিনি। তবে শর্ত সাপেক্ষে ৬ মাসের মুক্তির মধ্যে চার মাসেরও বেশী সময় পার হয়েছে।

মুক্তির দিন থেকেই ফিরোজার দোতলার ঘরে খালেদা জিয়া কোয়ারেন্টাইনে আছেন। সঙ্গে নার্সসহ কয়েকজন আছে। আর বেগম জিয়ার চিকিৎসার সব কিছু লন্ডন থেকে বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের স্ত্রী ডা. জোবাইদা রহমান তত্ত্বাবধান করছেন।