মেজর (অব.) সিনহা রাশেদ খান হত্যার সাথে আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়নের (এপিবিএন) তিন সদস্যের সংশ্লিষ্টতা পাওয়া গেছে বলে জানিয়েছে র‌্যাপিড এ্যাকশন ব্যাটালিয়ন (র‍্যাব)।

টেকনাফের এপিবিএনের ফাঁড়ি থেকে সোমবার রাতে এপিবিএনের ওই তিন সদস্যকে গ্রেপ্তার করে র‍্যাব। গ্রেপ্তাররা হলেন- এপিবিএনের এএসআই শাহজাহান, কনস্টেবল রাজীব ও আব্দুল্লাহ।

র‌্যাবের আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক লেফট্যানেন্ট কর্নেল আশিক বিল্লাহ জানান, সিনহা যেদিন পুলিশের গুলিতে নিহত হন, এই তিনজন তখন এপিবিএনের শামলাপুর টেকপোস্টে দায়িত্বরত ছিলেন।

তিনি বলেন, ‘সিনহা হত্যার ঘটনায় যারা সক্রিয়ভাবে জড়িত; তাদের সঙ্গে এই তিনজনের সংশ্লিষ্টতার অভিযোগ পাওয়া গেছে।’

গত ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর মেজর (অব.) সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান।

সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস গত ৫ অগাস্ট কক্সবাজারের হাকিম আদালতে হত্যা মামলা দায়ের করেন, সেখানে টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক লিয়াকতসহ নয়জনকে আসামি করা হয়।

সিনহা হত্যা মামলায় এ নিয়ে মোট ১৩ জনকে গ্রেপ্তার করা হল, যাদের মধ্যে তিনজন ছাড়া বাকি সবাই আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য।