সাবেক সেনা কর্মকর্তা সিনহা মো. রাশেদ হত্যার তদন্তে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় গঠিত তদন্ত কমিটির রিপোর্ট দাখিল করা হচ্ছে আজ। এ ধরনের ঘটনা রোধে বেশ কিছু সুপারিশ করেছে কমিটি। হত্যা মামলার প্রধান দুই আসামি ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও পরিদর্শক লিয়াকত আলীর কথোপকথনের বহুল আলোচিত ফোন রেকর্ড পায়নি তদন্ত কমিটি। ফোন রেকর্ড না পাওয়ার বিষয়টিকে ‘সীমাবদ্ধতা’ হিসেবে উল্লেখ করছে কমিটি।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, ওই প্রতিবেদনের সঙ্গে ২১ পৃষ্ঠার ছবি ও ৫৮৬ পৃষ্ঠার বিভিন্ন সাক্ষীর সাক্ষ্য রয়েছে। এর বাইরে দুটি পেনড্রাইভে কিছু ভিডিও চিত্রও সংযোজন করে জমা দেয়া হবে। আজ মন্ত্রণালয়ে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়ার সময় কমিটির চার সদস্যেরই উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে।
তদন্ত কমিটির প্রধান চট্টগ্রামের অতিরিক্ত বিভাগীয় কমিশনার মোহাম্মদ মিজানুর রহমান গণমাধ্যমকে বলেন, আমরা কোনো ফোন রেকর্ডই পাইনি।

আমরা লিখেছিলাম, কিন্তু সাড়া পাইনি। পাশাপাশি চলমান ফৌজদারি মামলার কারণে স্বাভাবিকভাবেই সংশ্লিষ্ট অনেকে গ্রেপ্তার হয়েছেন। তাই জিজ্ঞাসাবাদের ক্ষেত্রে আইনি প্রক্রিয়ার ভেতর দিয়ে যেতে হয়েছে। চাইলেই আমাদের পক্ষে আসামিদের সঙ্গে কথা বলা সম্ভব হয়নি। তিনি বলেন, এসব সীমাবদ্ধতা তাদের হত্যার ঘটনার উৎস ও কারণ নির্ধারণে প্রতিবন্ধকতা হয়ে দাঁড়ায়নি।