পরিবারের ব্যাপক আর্থিক সংকট উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বরাবর ফেসবুকে পোস্ট দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন আল মামুন নামে এক ছাত্রলীগ কর্মী।

রোববার ভোরে ফেসবুকে পোস্ট দেন ওই ছাত্রলীগ কর্মী। পরে সকালে নেত্রকোণার কলমাকান্দা উপজেলার রংছাতি ইউনিয়নের বিশাউতি গ্রামের নিজ ঘরের আড়ার সঙ্গে তার ঝুলন্ত লাশ উদ্ধার করে কলমাকান্দা থানার পুলিশ।

আল মামুন ওই গ্রামের রফিকুল ইসলামের ছেলে। তার বাবা ঢাকায় দিনমজুরের কাজ করেন এবং পরিবারে দুই ভাই ও দুই বোনের মধ্যে তিনি বড়। আল মামুন কলমাকান্দা সরকারি ডিগ্রি কলেজ থেকে এবার উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষার্থী ছিলেন।

মৃত্যুর আগে আল মামুন তার ফেসবুকে লিখেছেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী দেশরত্ন শেখ হাসিনা আপা, সভাপতি বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ- আমি আপনার রাজনৈতিক দলের সহযোগী সংগঠন বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কলমাকান্দা উপজেলা শাখার একজন ক্ষুদ্র কর্মী হিসেবে অন্যায়ের প্রতিবাদ, সৎ সাহস ও বুকে বাঙালি জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শ ধারণ করে দেশ ও সমাজকল্যাণে নিজেকে বিলিয়ে দিয়েছি সবসময়। কখনও নিজের ভবিষ্যৎ ও পরিবারের কথা চিন্তা করিনি।

এমতাবস্থায় ব্যাপক আর্থিক সংকট ও পরিবারের বড় ছেলে হিসেবে সংসারের দায়িত্ব নেয়া পাহাড় সমতুল্য। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী, আপনি যদি দয়া করে আমার পরিবারকে আর্থিক সাহায্য প্রদান করতেন- তাহলে বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশে আমার পরিবারের এতো কষ্টে দিন কাটাতে হতো না, কিছুটা হলেও সুখের সন্ধান পেত।’

এর আগে স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান তার জন্যে সাহায্য চেয়ে ইউএনওর মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রী বরাবর আবেদন করেছেন।

এ বিষয়ে কলমাকান্দা থানার ওসি মাজহারুল করিম জানান, নিহতের লাশ ময়নাতদন্তের জন্য নেত্রকোণা আধুনিক সদর হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে।