কুমিল্লার দাউদকান্দিতে উপজেলা প্রকৌশলী আহসান আলীকে লাঞ্ছিত করার ঘটনা ও লাঞ্ছনাকারীদের নামে মামলা করতে বাধা দেয়াসহ হুমকি দেয়ার প্রতিবাদে উপজেলা চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী সুমনের অপসারণের দাবি জানিয়েছে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন, বাংলাদেশ (আইইবি)। একই সাথে উপজেলা প্রকৌশলীকে লাঞ্ছনাকারীদের আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে গ্রেফতারের দাবি জানানো হয়েছে।

মঙ্গলবার অনলাইন জুমে আইইবির ৬৯৯ তম কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় নির্বাহী কমিটির সদস্যরা এই দাবি জানান।

আইইবির প্রেসিডেন্ট প্রকৌশলী মো. আবদুস সবুরের সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী খন্দকার মনজুর মোর্শেদের সঞ্চালনায় নির্বাহী কমিটির সদস্যরা বলেন, ‘উপজেলা প্রকৌশলীকে লাঞ্ছিত করার সময় সন্ত্রাসী ঠিকাদারদের সাথে উপজেলা চেয়ারম্যানের ব্যক্তিগত কর্মকর্তাও উপস্থিত ছিলেন। পরে প্রকৌশলী আহসান আলী যখন থানায় মামলা করতে যান তখন উপজেলা চেয়ারম্যান বাধা দেন। যার কারণে প্রথমে থানায় মামলা নিতে গড়িমসি করা হয়। পরে চাপে পরে থানায় মামলা নিতে বাধ্য হয়। কিন্তু মামলার পর থেকে প্রকৌশলী আহসান আলীকে বিভিন্নভাবে হুমকি-ধামকি দিচ্ছেন উপজেলা চেয়ারম্যান ও তার পোষা সন্ত্রাসী বাহিনী।’

‘এই উপজেলা চেয়ারম্যান দাউদকান্দি উপজেলার উন্নয়ন মূলক কাজে বাধা দিচ্ছেন বলে অনেক অভিযোগ রয়েছে। যেখানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সন্ত্রাসীদের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়েছেন সেখানে উপজেলা চেয়ারম্যান হয়ে তিনি সরাসরি সন্ত্রাসী কার্যকর্ম করছেন। এর আগেও এই উপজেলা চেয়ারম্যান সাবেক উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহবুবুল আলামসহ বিভিন্ন কর্মকর্তাদের লাঞ্ছিত করেন। এটা তার অভ্যাসে পরিণত হয়েছে। এখন বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজে প্রধান বাধা হয়ে দাঁড়িয়েছেন উপজেলা চেয়ারম্যান। এই উপজেলা চেয়ারম্যানের অপসারণের দাবি জানাচ্ছি। যেন বিভিন্ন উন্নয়নমূলক কাজগুলো গতিশীলভাবে চলে। একই সাথে সারা দেশের প্রকৌশলীদের জন্য নিরাপদ কর্মক্ষেত্র গড়ে তুলার দাবি জানাচ্ছি।’

প্রসঙ্গত, গত ২ জুলাই কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলা প্রকৌশলী আহসান আলীর কাছে অবৈধ ও অনৈতিক সুবিধা না পেয়ে ঠিকাদার ফারুক, কাইফ, মো. আক্তার হোসেন, মো. লিয়াকত আলী,নাফিস, মোহাম্মদ মঈন চৌধুরী, মরিমল, রবিউল সরকার বাবু, মো. আল-আমিন প্রথমে তার কক্ষে তালা দেয়। পরে প্রকৌশলী আহসান আলীকে শারীরিক ও মানসিকভাবে লাঞ্ছিত করে। পরে মামলা না দিতে বিভিন্নভাবে চাপ সৃষ্টি করেন উপজেলা চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী সুমন।