করোনার প্রকোপ নিয়ন্ত্রণে লোকজনকে ঘরে থাকতে উৎসাহিত করতে দেশের ৪০ শতাংশ মানুষকে মাসে ২৫ ডলার তথা ২ হাজার ১০০ টাকা নগদ ভাতা দেওয়ার সুপারিশ করেছে জাতিসংঘ উন্নয়ন কর্মসূচি (ইউএনডিপি)।

সংস্থাটি বলছে, জরুরি ভিত্তিতে অতিদরিদ্র মানুষকে সাময়িক আর্থিক সহায়তা দিলে করোনা সংক্রমণের গতি কমতে পারে।

বৃহস্পতিবার প্রকাশিত ‘টেম্পরারি বেসিক ইনকাম: প্রোটেক্টিং পুওর অ্যান্ড ভালনারেবল পিপল ইন ডেভেলপিং কান্ট্রিজ’ শীর্ষক প্রতিবেদন এ কথা বলা হয়।

ইউএনডিপি কয়েক মাস ধরে বিশ্বের ৬০টি দেশের আর্থসামাজিক অবস্থার ওপর কভিড-১৯-এর প্রভাব নিয়ে সমীক্ষা করেছে।

জাতিসংঘের এই সংস্থাটি বলছে, বাংলাদেশের ৬ কোটির ৫৩ লাখের বেশি গরিব মানুষের নগদ সহায়তা দরকার; যা দেশের মোট জনগোষ্ঠীর ৪০ শতাংশের কিছুটা বেশি।

এসব দরিদ্র জনগোষ্ঠীকে প্রতি মাসে ২৫ ডলার করে ভাতা দিলে সরকারের প্রায় ১৪ হাজার কোটি টাকা খরচ হতে পারে।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশ সরকার ৫০ লাখ মানুষকে এককালীন আড়াই হাজার টাকা দেওয়ার একটি কর্মসূচি পরিচালিত করছে।

সরকারি হিসাব অনুযায়ী, দেশে বৃহস্পতিবার সকাল নাগাদ করোনায় মৃতের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ২ হাজার ৮০১ জনে। শনাক্তের সংখ্যা ২ লাখ ১৬ হাজার ১১০ জন।

তবে সম্প্রতি করোনার নমুনা পরীক্ষার তুলনায় শনাক্তের হার প্রায় এক-চতুর্থাংশে গিয়ে ঠেকেছে যা আশঙ্কাজনক বলছেন স্বাস্থ্য বিশেষজ্ঞরা।