গাইবান্ধা শহরের থানাপাড়ায় গৃহকর্মীকে ধর্ষণ মামলায় সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক ইউনুস আলীর জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার বিকেলে গাইবান্ধা জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিচারক তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। ইউনুস আলী গাইবান্ধা সরকারী বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক। তিনি সুন্দরগঞ্জ উপজেলার তারাপুর ইউনিয়নের নওহাটী গ্রামের হাবিবুর রহমানের ছেলে।

বিষয়টি নিশ্চিত করে জেলা জজ আদালতের পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাড. শফিকুল রহমান শফিক জানান, ১৫ বছরের এক কিশোরী স্কুলশিক্ষক ইউনুস আলীর বাসায় গৃহকর্মীর কাজ করতো। এ সুযোগে নানা প্রলোভণ দেখিয়ে কিশোরীকে তিন মাস ধরে ধর্ষণ করে ইউনুস আলী। বিষয়টি কাউকে না জানাতে ধর্মগ্রস্থ ছুঁয়ে কিশোরীকে শপথ করান ওই শিক্ষক।

কিন্তু ইউনুস আলীর স্ত্রী ঘটনা জানতে পেরে গৃহকর্মী ওই কিশোরীকে বাড়ি থেকে তাড়িয়ে দেন। এরপর বাড়িতে গিয়ে কিশোরী তার পরিবারকে ঘটনাটি অবগত করে। এ ঘটনায় গত ৯ জুন কিশোরীর দাদী মালেকা বেগম বাদি হয়ে ইউনুস আলীর বিরুদ্ধে সদর থানায় ধর্ষণের অভিযোগে মামলা দায়ের করেন।

ওই মামলায় ইউনুস আলী উচ্চ আদালত থেকে চার সপ্তাহের অর্ন্তবর্তীকালীন জামিন নেন।

মঙ্গলবার আইনজীবীর মাধ্যমে আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করেন ইউনুস আলী। পরে শুনানি শেষে বিচারক তার জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। সন্ধ্যার দিকে তাকে আদালত থেকে জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।