সরওয়ার আলম শাহীন ::

করোনা ভাইরাস সংক্রামণের হার বিবেচনা করে উখিয়া উপজেলাকে ৩ টি জোনে ভাগ করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন উখিয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নিকারুজ্জামান চৌধুরী।

তিনি বলেন, ইতিমধ্যে উখিয়া উপজেলায় ইউনিয়ন ও ওয়ার্ড ভিত্তিক করোনা সংক্রমণের তথ্য সংগ্রহ ও তা বিশ্লেষণ করা হচ্ছে। পরিসংখ্যানে যে ইউনিয়ন বা ওয়ার্ড বেশী সংক্রামিত হয়েছে বা সংক্রামণের আশংকা রয়েছে বলে তথ্য পাওয়া যাবে সেগুলোকে “রেড জোন”, যে ইউনিয়ন বা ওয়ার্ড মাঝারী পর্যায়ে সংক্রামিত হয়েছে বলে তথ্য পাওয়া যাবে সেগুলোকে ” ইয়েলো জোন” এবং যে ইউনিয়ন বা ওয়ার্ডে করোনা একেবারে সংক্রামিত হয়নি সেগুলোকে নিরাপদ রাখতে “গ্রীণ জোন” এলাকা হিসাবে ভাগ করা হবে। কক্সবাজার জেলা প্রশাসনের নির্দেশনামতে কাল পরশুর মধ্যে তা কার্যকর হতে পারে।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা নিকারুজ্জামান চৌধুরী আরো বলেন, যে ইউনিয়ন বা ওয়ার্ড ‘রেড জোন’ হিসাবে চিহ্নিত হবে সে সব এলাকায় কঠোরতা অবলম্বন করা হবে। যে ইউনিয়ন বা ওয়ার্ড ‘ইয়েলো জোন’ চিহ্নিত হবে সেসব এলাকায় কঠোরতা সীমিত করা হবে। আর যে ইউনিয়ন বা ওয়ার্ড ‘গ্রীণ জোন’ হিসাবে চিহ্নিত হবে সেখানে সরকারি স্বাস্থ্য বিধি মেনে, সামাজিক ও শারীরিক দুরত্ব বজায় রেখে প্রায় স্বাভাবিক জীবনযাত্রা থাকবে।
এছাড়াও রোহিঙ্গা ক্যাম্পের ব্যাপারে তিনি বলেন,ক্যাম্পেও জোন করা হচ্ছে, আর ক্যাম্প লাগোয়া যারা স্থানীয় জনগন রয়েছে তাদেরকে আলাদাভাবে মনিটরিং করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হচ্ছে।