মুহাম্মদ আবু সিদ্দিক ওসমানী :

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের ল্যাবে শুক্রবার ২৯মে ২৬৩ জনের স্যাম্পল টেস্টের মধ্যে মোট ৭৫জনের রিপোর্ট ‘পজেটিভ’ পাওয়া গেছে। তারমধ্যে, কক্সবাজার জেলার ৬৭ জন, ভিন্ন জেলার ৩ জন, রোহিঙ্গা শরনার্থী ১জন এবং পুরাতন করোনা ভাইরাস আক্রান্ত রোগীর ফলোআপ টেস্টে ৪ জনের ‘পজেটিভ’ রিপোর্ট পাওয়া গেছে। বাকী ১৮৭ জনের রিপোর্ট ‘নেগেটিভ’ পাওয়া যায়।

কক্সবাজার মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ ডা. অনুপম এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

শুক্রবার ২৯ মে নতুন ‘পজেটিভ’ রিপোর্ট পাওয়া ৭৫ জন করোনা রোগীর মধ্যে কক্সবাজার সদর উপজেলায় ৫৪জন, চকরিয়া উপজেলায় ১জন, উখিয়া উপজেলায় ৮জন, টেকনাফ উপজেলায় ২ জন, মহেশখালী উপজেলায় ১ জন ও রামু উপজেলায় ১জন। এছাড়া চট্টগ্রামের লোহাগাড়া উপজেলায় ১জন, বান্দরবানের লামা উপজেলায় ২ জন ও রোহিঙ্গা শরনার্থী ১ জন রয়েছে।

এনিয়ে কক্সবাজার জেলায় শুক্রবার ২৯মে পর্যন্ত করোনা আক্রান্ত রোগীর সংখ্যা হলো ৬৩৮ জন। তারমধ্যে, করোনা আক্রান্ত হওয়া রোহিঙ্গা শরনার্থী রয়েছে ২৭জন।

তাছাড়া, আগে থেকেই করোনা আক্রান্ত হওয়া রোগীর ফলোআপ টেস্ট রিপোর্ট শুক্রবার ২৯মে ৪জনের ‘পজেটিভ’ পাওয়া যায়।

২৯ মে পর্যন্ত কক্সবাজার জেলার উপজেলা ভিত্তিক পরিসংখ্যান হলো : চকরিয়া উপজেলায় ১৫৮ জন, কক্সবাজার সদর উপজেলায় ২৩০জন, পেকুয়া উপজেলায় ৩৯ জন, মহেশখালী উপজেলায় ৩৩জন, উখিয়া উপজেলায় ৭৭ জন, টেকনাফ উপজেলায় ২০জন, রামু উপজেলায় ২৪জন, কুতুবদিয়া উপজেলায় ৩ জন এবং রোহিঙ্গা শরনার্থী ২৭জন।

কক্সবাজার জেলায় ইতিমধ্যে একজন মহিলা সহ মৃত্যুবরণ করেছেন ১০জন করোনা রোগী। মোট ১০২জন করোনা রোগী সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

প্রসঙ্গত, রোহিঙ্গা শরনার্থী আগে ২৯জন করোনা আক্রান্ত বলা হলেও সেটি মূলত ২৬ জন বলে জানিয়েছেন অতিরিক্ত আরআরআরসি (উপসচিব) সামছু দ্দৌজা। সে অনুযায়ী বৃহস্পতিবার ২৯মে আক্রান্ত হওয়া একজন রোহিঙ্গা শরনার্থী সহ মোট রোহিঙ্গা শরনার্থী করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ২৭জন।