অস্ত্র ও ইয়াবাসহ গ্রেপ্তার রাজধানীর আদাবর থানা আওয়ামী লীগ সহ-সভাপতি মনিরুজ্জামান ওরফে মনিরকে দুই মামলায় চার দিনের রিমান্ড শেষে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। বুধবার (১১ নভেম্বর) ঢাকার মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট ধীমান চন্দ্র মণ্ডল জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

গত ৫ নভেম্বর সন্ধ্যায় মোহাম্মদপুরের পিসিকালচার হাউজিং সোসাইটির বাসায় অভিযান চালিয়ে অস্ত্র ও ইয়াবাসহ মনিরকে গ্রেপ্তার করে র‌্যাব। পরদিন অস্ত্র আইনের মামলায় তিন দিন এবং মাদক মামলায় এক দিন করে তার রিমান্ড মঞ্জুর করে আদালত।

রিমান্ড শেষে মঙ্গলবার মনিরকে আদালতে হাজির করে কারাগারে আটক রাখার আবেদন করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা মোহাম্মদপুর থানার পরিদর্শক দুলাল হোসেন। মনিরের পক্ষে আইনজীবী শহিদুল ইসলাম মাদক মামলায় জামিন আবেদন করেন।

বিচারক আসামিকে কারাগারে পাঠিয়ে জামিন শুনানির জন্য বুধবার দিন ধার্য করে দেন। কিন্তু এদিন আইনজীবী জামিন শুনানি করেননি। শুনানি না করায় আদালত জামিন নামঞ্জুরের আদেশ দেন।

র‌্যাবের ভাষ্য মতে, গত বছর ঢাকায় ক্যাসিনোবিরোধী অভিযান শুরু হলে পরিবার নিয়ে দেশের বাইরে পালিয়ে যান মনির। পরিস্থিতি অনুকূলে এলে গত কোরবানির ঈদের সময় দেশে ফেরেন তিনি। এরপর ঢাকা উদ্যান, নবীনগর হাউজিং ও চন্দ্রিমা উদ্যানে ‘দখল বাণিজ্য’ শুরু করেন। মনিরের বিরুদ্ধে দখল, সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডসহ বিভিন্ন অভিযোগে প্রায় ৭০টি মামলা রয়েছে। শুধু মোহাম্মদপুর থানা ও আদালতে চাঁদাবাজি, জবরদখল, মাদক, অস্ত্র, নারী নির্যাতন, চুরিসহ বিভিন্ন কর্মকাণ্ডের অভিযোগে অর্ধশতাধিক মামলা ও জিডি রয়েছে।